বাংলাদেশে আ’সছেন নেদারল্যান্ডসের রানী ম্যাক্সিমা জরিগুয়েতা সেরুতি। আগামী ৯ জুলাই বিকেলে ঢাকা পৌঁছাবেন রানী ম্যাক্সিমা জরিগুয়েতা সেরুতি। তিনি জাতিসংঘ মহাসচিব এন্তোনিও গুতেরেজে'র ইনক্লুসিভ ফাইনান্স ফর ডেভেলপমেন্ট বিষয়ক স্পেশাল অ্যাডভোকেট।

ঢাকা সফরে ডাচ রানী জাতিসংঘের টেকসই লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে উন্নয়নের জন্য অন্তর্ভুক্তিমূলক আর্থিক ব্যব’স্থাপনা নিয়ে কাজ করবেন। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এসব তথ্য নি’শ্চিত করেছে।

সূত্র জা’নায়, রানী ম্যাক্সিমা’র ঢাকা অবতরণের আগে আগামী ৮ জুলাই বাংলাদেশ পৌঁছাবে তার বিশেষ নি’রাপত্তা দল এবং অন্যান্য সহায়তাকারী দল। ঢাকা সফরকালে বিশেষ নি’রাপত্তা পাবেন ডাচ রানী। আগামী ১১ জুলাই রানী ম্যাক্সিমা জরিগুয়েতা সেরুতির ঢাকা সফর শেষ হবে।
উল্লেখ্য, এর আগে ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে বাংলাদেশ সফর করেছিলেন রানী ম্যাক্সিমা জরিগুয়েতা সেরুতি। সফরসূচি অনুযায়ী, ঢাকা অব’স্থানকালে ডাচ রানী হোটেল সোনারগাঁওয়ে অব’স্থান করবেন।

৯ জুলাই বিকেলে রানী ম্যাক্সিমা সরাসরি হোটেল যাবেন। ১০ জুলাই সকাল থেকে ব্যস্ত সময় পার করবেন তিনি। সকালে ডেলিগেশন ব্রিফিংয়ের পর ঢাকায় জাতিসংঘ প্রধান কার্যালয়ে যাবেন। সেখানে একটি গোলটেবিলে অংশ নেবেন। এছাড়া প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, পররাষ্ট্রমন্ত্রীসহ ঢাকা সফর সমাপ্তের আগে সরকারের উচ্চ পর্যায়ের নেতা ও ক’র্মকর্তাদের স’ঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

রানী ম্যাক্সিমা বেশ কিছু কার্যালয় ও কার্যক্রম পরিদ’র্শন ছাড়াও বেসরকারি খাত এবং উন্নয়ন সহযোগী অংশীদার, সুশীল সমাজে'র প্রতিনিধিদের স’ঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।
এ বিষয়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক ক’র্মকর্তা জা’নান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে আ’সছেন ডাচ রানী ও জাতিসংঘ মহাসচিব এন্তোনিও গুতেরেজে'র ইনক্লুসিভ ফাইনান্স ফর ডেভেলপমেন্ট বিষয়ক স্পেশাল অ্যাডভোকেট। তিনি অন্তর্ভুক্তিমূলক আর্থিক ব্যব’স্থাপনা নিয়ে কাজ করেন।

‘তিনি মূলত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় আর্থিক ব্যব’স্থাপনার পাশাপাশি এখন সমাজে'র দরি’দ্র শ্রেণি যাতে নি’রাপদ আর্থিক সেবা পেতে পারে সে বিষয়ে কাজ করছেন। টেকসই লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সবার জন্য অর্থনৈতিক সেবা নিয়ে তিনি অ্যাডভোকেসি করেন। তবে বিশেষ কোনো একক অনুষ্ঠানে অংশ নেয়ার জন্য তিনি বাংলাদেশ আ’সছেন না,’ বলেন এ ক’র্মকর্তা।

ইউএনডিপি সূত্র জা’নায়, শুধু ক্ষুদ্র ঋণ নয় আর্থিক খাতের সার্বিক উন্নতির জন্য প্রয়োজন স্থিতিশীলতা, সততা, ভোগ্যপণ্য উৎপাদন, আর্থিক উত্তরসূরিতা, ক্ষুদ্র ঋণ, ডিজিটাল অর্থায়ন, ব্যাংকসহ সকল বিষয়গলো। এ সকল বিষয়গুলো কীভাবে দেশগুলোর জাতীয় কৌশলে অন্তর্ভুক্ত হতে পারে তা নিয়ে কাজ করছেন রানী ম্যাক্সিমা। এছাড়া ২০২০ সালের মধ্যে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে রেমিট্যান্স লেনদেনে খরচ কমিয়ে আনা নিয়ে কাজ করছে জাতিসংঘ।