করো'না ভা’ইরাসের উৎসভূমি উহান থেকে আড়াই মাসের লকডাউন উঠে যাওয়ার পরপরই শুরু হয়েছে বিয়ের উৎসব। বিয়ে সম্পাদনের জন্য তৈরি অ্যালিপে অ্যাপে আগের তুলনায় ৩০০ শতাংশ গুণ বিয়ের আবেদন জমা প’ড়েছে।
এমনকি বিয়ের আবেদনের চা’পে অ্যাপটি সাময়িকভাবে বিকল হয়ে প’ড়ে। চীনের হুবেই প্রদেশের ওয়াচাং জে’লার বিবাহ নিব'ন্ধন হলে গত বুধবার বিয়ে করেন জউ ওয়েই ও হু জিনপেং।মাত্র ১৫ মিনেটের এ ক’র্মকাণ্ডে ছিল না কোনো ভিডিওম্যান বা ক্যামেরাম্যান। করো'না ঝুঁ’কির মধ্যে ভিড় এড়াতে নিজেদের স্মা’র্টফোনেই স্মৃ'তিবন্দি ক’রেছেন তারা। খবর সিনহুয়ার।
অ্যালিপে কোম্পানি বলছে, ‘উহানের বিয়ের আবেদনের অ্যাপ আশাতীতভাবে বেশিবার ভিজিট করা হয়েছে। যার ফলে অ্যাপটি সাময়িকভাবে থমকে যায়। সিস্টেম ভে'ঙে না পড়লেও খুব ধীর হয়ে যায়। সেটি রিফ্রেশ ক’রতে বেশ কিছুটা সময় লে’গে যায়।’উহানে করো'না য় মৃ'ত্যুমিছিলের জে'রে ফেব্রুয়ারি ও মা’র্চে কোনো বিয়ে হয়নি। বিয়ের আবেদন নেয়া ব'ন্ধ করা হয়। দীর্ঘ ৭৬ দিনের হাহাকার কা’টিয়ে যুগলরা যাতে সবচেয়ে রোম্যান্টিক পথে প্রেম ক’রতে পারেন, সেই ব্যব’স্থা করা হচ্ছে।
তবে আবেদনের স’ঙ্গে বর-কনেদের করো'না মু’ক্তির সার্টিফিকেট পেশ ক’রতে হবে। চীনে বিখ্যাত অ্যালিপে অ্যাপের দা’বি, ‘আগে বিবাহবি’চ্ছেদের আবেদনই বেশি ছিল, তবে তা ছাপিয়ে এই পরিমাণে বিয়ের আবেদন জমা পড়বে- এমনটা ভাবা যায়নি।’ওয়াচাং জে’লার বিবাহ নিব'ন্ধ কার্যালয় জা’নায়, ‘এখন কিছু নিয়ম মেনেই বিয়ের আয়োজন করা হচ্ছে। ভবনে ঢোকার আগে কয়েকটি স্বা’স্থ্যবিধি মেনে চলতে হচ্ছে। নব দম্পতিদের পরানো হচ্ছে একবার ব্যবহারযোগ্য গ্লাভস।
চেহারা শনা’ক্তকরণ ডিভা’ইস দিয়ে তাপমাত্রা মাপা হচ্ছে। পায়ের জুতাও জী'বাণুনাশক ছিটিয়ে বিশুদ্ধ করা হচ্ছে। মাত্র ১৫ মিনেটেই বিয়ের সব আয়োজন শেষ করা হচ্ছে।’ সর্বোচ্চ ২০টি যুগলকে একদিনে বিয়ে দেয়া হচ্ছে বলে জা’নায় ওই বিবাহ নিব'ন্ধন কার্যালয়।
করো'না ভা’ইরাস প্রাদু'র্ভাবের প্রথমদিকে জানুয়ারিতে প্রেম শুরু করেন জউ ওয়েই ও হু জিনপেং। উহানের পাশে শিয়াওগান শহরের বাসিন্দা জউ বলেন, লকডাউনে ঘরবন্দি থাকার সময় আম’রা ভিডিওকলে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কথা বলেছি।রাজধানী বেইজিংয়ে হোম কোয়ারেন্টিনে ছিলেন জিনপেং। বুধবার তারা বিয়ে করেন।