বিয়ের পর প্রথম ৬ মাস বিরাটের স’ঙ্গে মাত্র ২১ দিন কা’টিয়েছি। আমি দিন গুনে রাখতাম। আর তাই যেটুকু সময় যে ক’টা দিন আমাদের দেখা হয়েছে সেই প্রতিটা মু’হূর্ত ছিল আমা’র কাছে খুব দামি। সহজ স্বী’কারোক্তি আনুশকা শর্মা’র।

বিয়ের পর তিনি এবং বিরাট কোহলি দু’জনেই পেশার জন্য খুব ব্যস্ত থাকতেন। দেখা বলতে ভরসা ছিল ভিডিও কল। কিংবা কখনও খুব শর্ট ট্রিপ। বিরাটের যেখানে খেলা থাকত সেখানে হয়তো আনুশকা কোনও রকমে একটা দিন ব্যব’স্থা করে দেখা ক’রতেন বা কখনও বিরাট পৌঁছে যেতেন আনুশকা শ্যুটিং স্পটে। কিন্তু এভাবে দু’জনেই হাঁপিয়ে উঠছিলেন।

স’ম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে এমনটাই জা’নিয়েছেন আনুশকা শর্মা। তিনি আরও জা’নান, ‘সকলেই ধ’রে নিতেন আমি যখন বিরাটের স’ঙ্গে দেখা ক’রতে আসি বা ও যখন আমা’র স’ঙ্গে দেখা ক’রতে যায় তা হল ছুটি। কিন্তু কাজে'র মাঝে ওভাবে ছুটি হয় না। কারণ আম’রা টানা কাজ করে যেতাম। আম’রা বিয়ের পর প্রথম ছ’মাস একস’ঙ্গে মোটে ২১ দিন থেকেছি। আমি গুনে দেখেছি। আর তাই যখন আমাদের দেখা হত তখন অ'ন্তত একস’ঙ্গে লাঞ্চ বা ডিনারটা করবো সেটা তো খুবই স্বা’ভাবিক। এই প্রতিটা মু’হূর্ত আমা’র কাছে ছিল খুব গু’রুত্ব পূরর্ণ।

আর তাই লকডাউনে এই প্রথম দু’জনে একস’ঙ্গে অনেকটা সময় কাটাতে পারলেন। আড্ডা, গল্প খাওয়া ইত্যাদি তো ছিলই। সেই স’ঙ্গে ক্রিকেট নিয়ে আলোচনা, একস’ঙ্গে ওয়েব সিরিজ দেখা সবই ক’রেছেন। তাঁদের সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টই এর প্রমাণ। এমনকি, এই লকডাউনে বিরাটের স’ঙ্গে ক্রিকেটও খেলেছেন আনুশকা

সেই সাক্ষাৎকারে বিরাট বলেন, আম’রা প্রতিদিন একে অপরকে ভালোবাসি। আমাদের স’স্পর্কে সবসময় প্রেমই প্রাধান্য পায়, পাচ্ছে এবং প্রেমই আমাদের স’স্পর্ককে এমন ভালোবাসায় বেঁধে রেখেছে। আর তাই আম’রা অ’নুভব করি মোটে এই কয়েকবছর নয়। জ’ন্ম জ’ন্মান্তর ধ’রে আম’রা একে অপরকে চিনি আর ভালোবাসি।