নারায়ণগ’ঞ্জে'র ব’ন্দর উপজে’লা কৃষি অফিসের উপসহকারী উ’দ্ভিদ সংর’ক্ষণ ক’র্মকর্তা জয়নাল আবেদীন ও অফিসের এক নারী সহক’র্মীর অ’ন্তর’ঙ্গ স’ম্পর্কের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মা’ধ্যমে ছ’ড়িয়ে প’ড়েছে।

গত ৮ অক্টোবর দুপুরে ঘ’টনাটি অফিসের সিসি ক্যা’মেরায় ধ’রা প’ড়ে। ঘ’টনাটি জা’নাজানি হওয়ার পর থেকে জয়নাল আবেদীন ছু’টিতে রয়েছেন। তার স’ঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা হলে তিনি বলেন, আমি ভু’ল করেছি। শ’য়তানের প্র’রোচনায় আমি ভু’ল ক’রেছি।

তবে ওই নারী বলে’ছেন, ‘জয়নাল সাহেব আমা’র ঊ’র্ধ্বতন ক’র্মকর্তা। তিনি আমা’র ই’চ্ছার বি’রুদ্ধে অনৈ’তিক কাজ ক’রেছেন। চাকরির ভ’য়ে চুপ ছিলাম।’

ব’ন্দর উপজে’লা কৃষি ক’র্মকর্তা তাহমিনা বেগম বলেন, ‘আমি সিসিটিভি ফু’টেজ দে’খেছি। তার অনৈ’তিক ক’র্মকা’ণ্ডের বি’ষয়ে জে’লা কৃষি ক’র্মকর্তাকে অ’বহিত করেছি। তিনি ব্য’বস্থা নেবেন।’

অ’ভিযোগ পাওয়ার কথা স্বী’কার করে নারায়ণগ’ঞ্জ জে’লা কৃষি ক’র্মকর্তা কাজী হাবিবুর রহমান বলেন, জয়নালকে অ’ন্যত্র ব’দলি করা হয়েছে।

ব’ন্দর উপজে’লা চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ বলেন, এ ধ’রনের অপ’রাধ মে’নে নেওয়া যায় না। বিষয়টি তিনি তাৎ’ক্ষণিক উপজে’লা নির্বা’হী ক’র্মকর্তা (ইউএনও) শু’ক্লা সরকারকে অ’বহিত ক’রেছেন।

উপজে’লার একা’ধিক ক’র্মকর্তা বলেন, জামালপুরের ডিসি যদি তার কৃ’তক’র্মের জন্য শা’স্তি পেতে পারেন, ব’ন্দর উপজে’লা কৃষি ক’র্মক’র্তা কেন পাবেন না। তার বি’রুদ্ধে বিভাগীয় ব্যব’স্থা নেওয়ার দা’বি জা’নান তারা।

সূত্র: বিডি২৪লাইভ